পার্ট টাইম জব – HSC/ SSC/ ডিগ্রী/ অনার্স – ডিউটি ৩-৫ ঘন্টা – বেতন ঘন্টা প্রতি ১০০০ থেকে ৩০০০ পর্যন্ত মাসিক ভিত্তিতে

নানা ধরনের চাকরি আছে যেগুলো পাওয়া খুব কঠিন। কিন্তু একমাত্র পার্ট টাইম জবের কোন অভাব নেই। অনেকেই মনে করে থাকেন যে, পার্ট টাইমের জন্য কাজ পাওয়া দুষ্কর। যারা এটা ভাবে তাদের কাছে সব চাকরিই দুষ্কর। যাদের কাছে পার্ট টাইম চাকরি পাওয়া দুষ্কর বলে মনে হয় তাদের অন্যান্য চাকরি পাওয়া আরো দুষ্কর হয়ে যায়।

পার্ট টাইম চাকরির কিন্তু বেশ কিছু টাইম ফ্রেম আছে। যেমন ধরা সকাল ৮ থেকে ১২ টা পর্যন্ত কিছু কিছু প্রতিষ্ঠান স্লট নির্ধারন করা থাকে। এটা হতে পারে ৪ ঘন্টার শ্লট। এই ৪ ঘন্টার শ্লটের কদর বেশি। কারন ৪ ঘন্টার স্লটের জন্য প্রতিষ্ঠান গুলো বেতন নির্ধারন করতে পারে ভাল মত। মুলত অধিকাংশ ক্ষেত্রেই দেখা যায় যে, ৪ ঘন্টার শ্লটে বেতন বেশি হয়ে থাকে। তবে ব্যপারটা এমন নয় যে, ৪ ঘন্টার জন্য অফিসে গেলেন আর ৩ থেকে ৪ কাপ চা খেতে খেতে কাটিয়ে দিলেন ৪ ঘন্টা মনের মাধুরী মিশিয়ে। একদম এমন নয় ঘটনা। ৪ ঘন্টার শ্লটে পার্ট টাইম কাজ করা সবচেয়ে কঠিন। কারন কোম্পানিগুলো একদম গাধার খাটুনি খাটিয়ে আপনার জন্য সিলেক্ট করা বেতন এর পুরো প্যরা তুলে নেবে। তবে ৪ ঘন্টার শ্লটের কাজে যারা জয়েন করেন তারা এই কাজ ছাড়তে পারেন না কষ্ট হলেও। কারন এই ৪ ঘন্টার পার্ট টাইম শ্লটের কাজের বেতন থাকে বেশ আকর্ষনীয়। অবশ্য সবাই যে এই সব ৪ ঘন্টার পার্ট টাইম জব পায় তা কিন্তু নয়। এর জন্য বিশেষ কিছু স্কিলের দরকার পড়ে। এদের কাজ হয় তড়িত নিখুত এবং একদম ক্লিন। এমন না হলে ৪ ঘন্টার শ্লটের কাজ পাওয়া যায়না।

তাহলে কোন শ্লটের কাজ সবচেয়ে বেশি থাকে এবং সবাই করতে পারেন যে কোন শিক্ষাতেই? এই প্রশ্নের জবাব হল ৬ ঘন্টার শ্লট। ৬ ঘন্টার শ্লটে কাজের জন্য তেমন স্কিলের দরকার পড়েনা। মোটামোটি দরকারি কিছু কাজ আর অল্প বিস্তর শিক্ষা হলেই ৬ ঘন্টার শ্লটের ভুরি ভুরি কাজ পাওয়া যায়।

যাই হোক, সহজে পাওয়া যায় এবং সবার উপযোগি কিছু পার্ট টাইম চাকরির সার্কুলার এখানে ক্লিক করে দেখে নিন।